এক নজরে নগদ মোবাইল ব্যাংকিং এর সুবিধা গুলো জেনেনিন?

নগদ মোবাইল ব্যাংকিং :- বন্ধুরা স্মার্টফোনের আবির্ভাবে ব্যাঙ্কিং পরিষেবা এখন আমাদের হাতের মুঠোয়।আজ দেশ-বিদেশে অনেক সার্ভিস প্রোভাইডার আছে যারা মোবাইল ব্যাঙ্কিং পরিষেবা দিচ্ছে,তারমধ্যে বাংলাদেশে নগদ মোবাইল ব্যাংকিং এর পরিষেবা অন্যতম।আজ এই আর্টিকেলে নগদ মোবাইল ব্যাংকিং এর সুবিধে গুলি বিবেচনা করবো।

নগদ মোবাইল ব্যাংকিং এর সুবিধা

বন্ধুরা আপনারা হয়তো অনেকেই জানেন নগদ হচ্ছে বাংলাদেশ ডাক বিভাগের নিয়ন্ত্রণাধীন একটি ব্যাংকিং সার্ভিস।এটি সরকারি নিয়ন্ত্রনহীন ব্যাংকিং প্রোভাইডার হওয়ার ফলে আমাদের যে সকল সুবিধা গুলো দেই সেগুলি অন্যান্য বেসরকারি ব্যাংকিং প্রোভাইডার দিতে পারেনা।

তাই নগদ ব্যাংকিংএর গ্রাহকসংখ্যা অন্যান্য ব্যাংকিং প্রোভাইডার থেকে অনেকবেশি।

মোবাইলের মধ্যে টাকা পাঠানো বা রিসিভ করার উদ্দেশ্যে গ্রাহকরা মোবাইল ব্যাংকিং পরিষেবা গুলি ব্যবহার করে।বর্তমানে এখন বাংলাদেশের মধ্যে যতগুলি মোবাইল ব্যাংকিং প্রোভাইডার আছে তারা ক্যাশ ইন,ক্যাশ আউট,সেন্ড মানি আরো অন্যান্য পরিষেবা বা সুবিধে গুলি দিয়ে থাকে।

ফ্রেন্ডস,আপনারা যদি নগদ মোবাইল ব্যাঙ্কিং সম্পর্কে কোনো ধারণা নেই ,মোবাইল ব্যাংকিং কিভাবে করে ? বা নগদের মধ্যে কিভাবে একাউন্ট ওপেন করতে হয়,এই সম্পর্কে তথ্য জানতে হলে নিচের দেওয়া আর্টিকেলটি পড়েনিন।

জেনেনিন নগদ মোবাইল ব্যাংকিং এর সুবিধা গুলির সম্পর্কে?

আজ এই আর্টিকেলের মধ্যে নগদ অন্যান্য ব্যাংকিং প্রোভাইড থেকে কি অতিরিক্ত সুবিধা দেই সেগুলি জানার চেষ্টা করব।

ট্রানজেকশন বা টাকা লেনদেন

বাংলাদেশের মধ্যে যে সকল ব্যাংকিং সংস্থাগুলি আছে তাদের তুলনাই নগদে ট্রানজেকশন লিমিট অনেক বেশি।মানে নগদ এরমধ্যে ক্যাশ ইন,ক্যাশ আউট,সেন্ড মানি এগুলির লিমিট অন্যান্য প্রোভাইডারের থেকে অনেক বেশি।

যেখানে রকেট বা বিকাশের এরমধ্যে মাসিক লিমিট হচ্ছে দু লক্ষ টাকা,সেখানে নগদ ব্যাংকিং এ মাসিক সর্বোচ্চ 5 লক্ষ টাকা লেনদেন করতে পারবেন।

এছাড়া অন্যান্য যেসকল মোবাইল ব্যাংকিং প্রোভাইডার দের ডেলি ট্রানজেকশন লিমিট ৩0000 টাকা সেখানে নগদ এর মধ্যে আপনি সর্বোচ্চ ২.৫ লক্ষ টাকা পর্যন্ত লেনদেন বা ডেলি ট্রানজেকশন করতে পারবেন।

এছাড়া নগদ এরমধ্যে আরেকটি বৈশিষ্ট্য বা সুবিধা হচ্ছে,আপনি বাড়ির পাশেই পোস্ট অফিসের মাধ্যমে ক্যাশ আউট করতে পারবেন।

এবং আপনি এক নগদ একাউন্ট থেকে অন্য নগদ একাউন্ট এরমধ্যে কোন চার্জ ছাড়া ফ্রিতে ট্রানজেকশন বা টাকা লেনদেন করতে পারবেন।

ক্যাশআউট চার্জ –

নগদ মোবাইল ব্যাংকিং এরমধ্যে আরেকটি বিশেষ সুবিধা হচ্ছে এর ট্রানজেকশন চার্জ অন্যান্য ব্যাংকিং সংস্থা থেকে অনেক কম।

বিগত কয়েক বছর ধরে যেখানে অন্যান্য ব্যাংকিং সংস্থা গুলি 18 টাকা 50 পয়সা বা তার বেশি ক্যাশ আউট চার্জ ধার্য করতো, সেখানে নগদ ই প্রথম এই বেরিয়ার চেঞ্জ করে এবং সেই চার্জ সিঙ্গেল ডিজিট এর মধ্যে নিয়ে আসে।

বন্ধুরা আপনি নগদ মোবাইল অ্যাপের মাধ্যমে মাত্র 9 টাকা 50 পয়সা চার্জ দিয়ে ক্যাশ আউট করতে পারবেন।

এছাড়া  আপনার যদি মোবাইল অ্যাপ ব্যবহার না করেন তাহলে নগদ USSD কোড ডায়াল করে এর উদ্যোক্তা পয়েন্ট থেকে ক্যাশ আউট করতে 12 টাকা 99 পয়সা ধার্য করে।

বন্ধুরা বাংলাদেশ অন্যান্য ব্যাংকিং সংস্থা ক্যাশআউট করতে যে টাকা ধার্য করে তাদের তুলনায় অনেক কম।

ফ্রীতে বিভিন্ন বিল পেমেন্ট-

বন্ধুরা আপনারা নগদ এর মাধ্যমে ফ্রীতে বিদ্যুৎ বিল পেমেন্ট করতে পারবেন।এগুলির মধে উলেক্ষ ডেসা,ডেসকো,পল্লী বিদ্যুৎ এছাড়া মোবাইলে টাকা রিচার্জ করতে কোন চার্জ লাগে না।

সেভিংস এর মুনাফা –

আপনারা যদি নগদ একাউন্ট এর মধ্যে টাকা সেভিংস বা জামা রাখেন,তাহলে নগদ তার পরিবর্তে কিছু মুনাফা দেই।

অবশ্য এইগুলি কত পরিমাণ টাকা কত দিনের জন্য রাখবেন সেটার উপর নির্ভর করে।

আপনি যদি নগদ একাউন্ট এর মধ্যে 1001- 5001 টাকা জমা রাখনে,তাহলে নগদ বছর শেষ 5 শতাংশ তার মুনাফা দিবে।এছাড়া আপনি যদি 5001 থেকে 3 লক্ষ টাকা পর্যন্ত রাখেন তাহলে বছর শেষে আপনাকে 7.5 শতাংশ মুনাফা দিবে।

হাঁ বন্ধুরা ,আপনারা যদি এই সুদ না নিতে চান তাহলে নগদ app এর মধ্যে ও call center 16167 নম্বরে কল করে ইসলামিক মোড টার্ন অন করেদিন।ফলে আপনার একাউন্টে মুনাফা বা সুদ অ্যাড হবে না।

আরও পড়ুন –

নগদ একাউন্ট খুলার নিয়ম-

কিছু সময় ধরে মানুষের মধ্যে একটি ডিজিটাল টাকা লেনদেন পরিষেবা খুবি জনপ্রিয় পাচ্ছে যার নাম হচ্ছে Nagad App।বর্তমানে,বাড়িতে বসে আপনি খুব সহজে নগদে একাউন্ট চালু করতে পারবেন।

আপনার কাছে যদি স্মার্টফোনে থাকে তাহলে নগদ app ডাউনলোড করে এখানে একাউন্ট ওপেন করেনিন।নগদ ই প্রথম বাংলাদেশে ডিজিটাল kyc এর মাধ্যমে একাউন্ট ওপেন করার প্রসেস শুরু করে।

পরবর্তীতে রকেট ও বিকাশ সহ অন্যান্য মোবাইল ব্যাঙ্কিং সংস্থা এই পদ্ধতি অনুসরণ করে।এছাড়া নগদ গ্রাহকদের সুবিধার্থে একাউন্ট খুলার জন্য একটি নুতুন মাধ্যম শুরু করেছে।

এই পদ্ধতিতে গ্রাহকরা যেকোনো মোবাইল অপারেটর এর sim ব্যবহার করে তাদের মোবাইল থেকে *167# ডাইল করে সিমের ইনফরমেশন ব্যবহার করে শুধুমাত্র ৪ ডিজিটের পিন দিয়ে নুতুন নগদ একাউন্ট চালু করতে পারবেন।

এছাড়া নগদ বাংলাদেরে বিভিন্ন ইকমার্স সাইট এর সঙ্গে সুগযুক্ত হয়ে বিভিন্ন ক্যাশব্যাক অফার দিয়ে থাকে।এছাড়াও বিভিন্ন সময়ে নগদ রেফারেল বোনাস ও দেই।

তো,এই ছিল বন্ধুরা মোটামুটি নগদ এর বিস্তারিত সুযোগ-সুবিধাদী। নগদের একাউন্ট এর সুবিধা সম্পর্কে আপডেট জানতে হলে নগদ এর ফ্যানপেজ এর সাথে সংযুক্ত হয়ে যান।

জেনেনিন –

শেষকথা-

ফ্রেন্ডস,উপরে নগদ এর মধ্যে একাউন্ট খুল্লে কিরকম সুবিধে পাবেন সেটি হালকা করে আলোচনা করা হলো।এছাড়া আপনারা নগদ সম্পর্কিত যেকোন সমস্যা বা তথ্য জনাতে কাস্টমার কেয়ারের নম্বর 16167 অথবা 096 096 16167 নাম্বারে কল করতে পারেন।

আপনি যদি গ্রামীণফোন, রবি এবং এয়ারটেল সিম ব্যবহার করেন তাহলে আরও সহজে নগদ একাউন্ট খুলতে পারবেন। সেক্ষেতে আপনি মোবাইলে *167# ডায়াল করে পিন সেট করে একাউন্ট এক্টিভ করুন।

বন্ধুরা,আপনারা যদি নগদ মোবাইল ব্যাংকিং এর সুবিধা আরও বিস্তারিত জানতে চান,তাহলে এর অফিসিয়াল ওয়েবসাইট এ ভিসিট করুন।নিচে এর লিংক দেওয়া হলো –nagad.com

Share via
Copy link