ফ্রি ব্লগ সাইট তৈরি?কিভাবে ফ্রী ব্লগ তৈরী করবেন?

কিভাবে ব্লগ তৈরী করবো:- ইন্টারনেট থেকে টাকা ইনকাম করার একটি ভালো মাধ্যম হচ্ছে ফ্রি ব্লগ সাইট বানিয়ে লেখা-লিখি শুরু করা। বর্তমানে blogger.com থেকে সম্পূর্ণ ফ্রীতে একটি personal blog তৈরী করা যায়। তাই,আমরা এই পোস্টে ফ্রী ব্লগ খোলার নিয়ম সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করবো।

কিভাবে ব্লগ তৈরী করবো

ইন্টারনেট থেকে টাকা ইনকাম করার একটি সফল ও সুরক্ষিত মাধ্যম হচ্ছে ব্লগিং আরাম্ভ করা।বর্তমানে blogger.com ও WordPress এই দুটি প্লাটফর্ম দ্বারা খুব সহজে ব্লগ তৈরী করা যায়।

ওয়ার্ডপ্রেস এর সাহায্যে ব্লগ ওপেন করতে কিছু পয়সা খরচ হয় ও তার প্রসেস একটু জটিল। কিন্তু Google এর  blogger হচ্ছে সম্পূর্ণ ফ্রী ও এর মধ্যে ব্লগ ওপেন করা খুব সহজ।

এই আর্টিকেলে Blogger এরমধ্যে ব্লগ কিভাবে ওপেন করবেন তার পুরো প্রক্রিয়াটি আলোচনা করবো।(how to create a blog in bengali)

ফ্রেন্ডস,এই প্লাটফর্মে আপনি কাজ করে মাসে ২৫-৩০ হাজার টাকা অনায়াসে কমিয়ে নিতে পারবেন।তবে,ব্লগিং শুরু করার আগে কিছু বেসিস জিনিস বা শিক্ষা আছে যেগুলি সেগুলি শিখে নেওয়া প্রয়োজন।

ব্লগিং হচ্ছে এমন পেশা যেখানে পৃথিবীর লক্ষ লক্ষ মানুষ এই প্লাটফর্মকে ব্যাবসাতে পরিনিত করেছে। আজ ব্লগিং করে বহু মানুষ  হাজার হাজার টাকা আয় করছেন,

তাই আপনিও এই প্লাটফর্মকে কাজে লাগিয়ে ভালো রকম প্রফিট কামতে চাইলে নিচের পোস্টটি ভালো করে পড়ুন।

মোবাইলে থেকে ইনকাম –

সূচীপত্র

ব্লগার কি?কিভাবে ব্লগ তৈরী করবো ও ব্লগারে ব্লগ বানানোর জন্য কিসের প্রয়োজন?

ব্লগার কি:-

blogger হচ্ছে একটি গুগলের প্রোডাক্ট যেমন youtube,gmail ওই গুলি গুগলের সার্ভিস।blogger.com নির্মিত করা হয়েছে সেই লোকেরা উদেশ্যে,যারা তাদের লেখা-লিখি সম্পূর্ণ ফ্রিতে একটি ব্লগ বানিয়ে অনলাইনে পাবলিশ করতে পারে।

যারা ভিডিও বানিয়ে ফ্রীতে অনলাইনে পাবলিশ করতে চান তারা youtube প্লাটফর্মকে বেঁছেনিন।সেই ভাবে যারা লেখা-লেখি পছন্দ করেন তাদের জন্য blogger হচ্ছে একটি ভালো প্লাটফর্ম।

ফ্রেন্ডস গুগল আমাদের ইন্টারনেট থেকে টাকা উপার্জন করার ২ টি সুরক্ষিত প্লাটফর্ম উপহার করেছে। একটি হচ্ছে youtube ও অপরটি blogger.

গুগলের এই সার্ভিস বা প্লাটফর্ম গুলির সাহায্যে যেকেউ একটি ওয়েবসাইট তৈরী করতে পারে।আমাদের দেশ বহু মানুষ এই প্লাটফর্ম থেকে ফ্রী ব্লগ বানিয়ে আজ বড় বড় নাকরা ব্লগার রূপে পরিচিতি পেয়েছেন।

বন্ধুগণ এর পরবর্তী স্টেপ জানবো কিভাবে একটি ব্লগার একাউন্ট খুলবেন।(How to open Blogger account)

ব্লগার একাউন্ট কিভাবে খুলবো বা ব্লগারে ব্লগ বানানোর জন্য কিসের প্রয়োজন?

ব্লগারের মধ্যে একাউন্ট ওপেন করা খুবই সহজ,শুধু আপনার একটি Google বা Gmail একাউন্টের  এর দরকার পড়বে।

এছাড়া আপনি একটি “gamil id থেকে অনেক গুলি ব্লগার একাউন্ট ওপেন করতে পারবেন।

তাই আগে থেকে Gmail একাউন্ট থাকলে ওই id এরমধ্যে ব্লগার একাউন্ট বানিয়ে নিতে পারবেন।

আর যদি আপনাদের gmail id নেই অথবা নুতুন Gmail বানাতে চান তাহলে এখানে জেনেনিন – নুতুন Gmail account কিভাবে খুলবেন?

বন্ধুগণ,আগেই বলেছি ব্লগার হচ্ছে সম্পূর্ণ ফ্রী প্লাটফর্ম।এখানে gamil id দিয়ে ব্লগ বানাতে এক পয়সা ও খরচ হয় না।

আপনার ব্লগ তৈরী পর সেখানে আর্টিকেলে পাবলিশ করতে শুরু করুন ,ধীরে ধীরে তারমধ্যে ট্রাফিক এলে এডসেন্স দ্বারা সেই ব্লগ থেকে ভালো পরিমান উপার্জন করতে পারবেন।

ব্লগ কি ও কিভাবে ব্লগ থেকে টাকা যায় করবেন?

তাহলে বন্ধুরা আবার কিভাবে একটি ব্লগার ব্লগ বানাবেন সেটি স্টেপ বই সাথে দেখেনি।

কিভাবে ব্লগার ব্লগ তৈরী করবেন (how to open Blogger blog):-

ফ্রেন্ডস ব্লগারে এরমধ্যে ব্লগ তৈরি করার জন্য কিছু ইলেকট্রিক ডিভাইস এর প্রয়োজন পড়ে,যেমন laptop-computer ও সঙ্গে একটি ভালো ইন্টারনেট যোগাযোগ থাকা প্রয়োজন। 

এছাড়া আপনার যদি একটা ভালো কম্পিউটার কিবোর্ড থাকে তাহলে আপনার দ্রুত টাইপিং করতে সুবিধা হবে। 

ব্লগিং ক্ষেত্রে টাইপিং খুবই গুরুত্বপূর্ণ,আপনি যত তাড়াতাড়ি ও সুন্দর টাইপিং করতে পারবেন আর্টিকেল তত তাড়াতড়ি কমপ্লিট করতে পারবেন।

আমি আগেই বলেছি,ব্লগারে এরমধ্যে ব্লগ ওপেন করতে একটি জিমেইল আইডির দরকার পরে। 

আশাকরি,আপনাদের জিমেইল অলরেডি তৈরী হয়েগেছে ও উপরে বলা ওইসব সরঞ্জাম গুলো আপনাদের কাছে মজুদ রয়েছে।

এবার নিচে আমরা step-by-step আলোচনা করব,সেগুলো ফলো করে ফ্রিতে ব্লগার ব্লগ ওপেন করেনিন।

স্টেপ1- নিজের Google account লগইন করুন।

ফ্রেন্ডস,কম্পিউটারের মধ্যে গুগল ওপেন করুন সেখানে blogger.com লিখে ওয়েবসাইটটি ওপেন করুন।

ওয়েবসাইট ওপেন হলে হোমস্ক্রীন এরমধ্যে “create your blog” লেখা আছে ওখানে ক্লিক করুন। 

এরপর নেক্সট পেজ ওপেন হলে সেখানে “Google account login” পেজ দেখতে পাবেন।

এখানে আপনি যে জিমেইল id দ্বারা নিজের ব্লগার একাউন্ট ওপেন করতে চান সেই জিমেইল আইডি সিলেক্ট করে লগইন হয়েযান।

 

ফ্রেন্ডস এখানে ওই জিমেইল আইডি ও পাসওয়ার্ড দ্বারা গুগল এর সমস্ত প্রডাক্ট বা সার্ভিস যথা জিমেইল,ইউটিউব ও ব্লগার এরমধ্যে অ্যাক্সেস করতে পারবেন।

এখানে জেনেরাখা দরকার,ব্লগার এরমধ্যে আলাদা ভাবে লগইন করার দরকার নেই,জিমেইল id এরমধ্যে লগইন হলে ব্লগার এর মধ্যে লগইন হয়েযাবেন।

step 2 – নিজের ব্লগের নাম ও এড্রেস Choose করুন।

ফ্রেন্ডস ব্লগার ওয়েবসাইটে প্রবেশ করেই নিজের ব্লগের জন্য একটি নাম সিলেক্ট করতে বলা হবে। ফাঁকা স্থানে নিজের পছন্দ অনুযায়ী একটি নাম বেছে নিন।

যেমন আমার ব্লগের নাম হচ্ছে “techjaman”

এরকম আপনারা নিজের পছন্দের একটি নাম ফাঁকা স্থানে লিখে ফেলুন।

নিজের ব্লগের নাম চুষ হয়ে গেলে নেক্সট ক্লিক করুন।

নেক্সট ক্লিক করার পর দ্বিতীয় পেজে আপনাকে নিজের ব্লগের জন্য এড্রেস চুষ করেনিতে হবে। যেমন আমি “techjaman.blogspot.com” এই ব্লগের এড্রেসটি চুষ করেছি।

সেইরূপ আপনারা নিজের ব্লগ নাম অনুসারে একটি ব্লগের এড্রেস চুষ করেনিন।

ব্লগের এড্রেস খুবই গুরুত্বপূর্ণ, এই এড্রেস থেকে দর্শকরা আপনার ব্লগে ভিজিট করবে।এছাড়া এই এড্রেস দ্বারাই আপনার ব্লগ পরিচিতি পাবে।

এখানে blogger যেহুতু গুগলের ফ্রী সার্ভিস তাই ব্লগের যেকোন এড্রেস নামের পাশে “blogspot.com” এড্রেসটি যোগ হবে।

কিন্তু আপনি যদি ব্লগ নামের পশে একটি কাস্টম Domain নাম যথা “.com/.in/.info/.net” বসাতে চান তাহলে আপনাকে সেটি ক্রয় করতে হবে।

যেমন “techjaman.com” এখানে আমাকে .com ডোমেইন ক্রয় করতে হয়েছে।

freinds,আমরা অন্যকোন আর্টিকেলে কিভাবে ডোমেইন ও হোস্টিং ক্রয় করবেন সেগুলি বিস্তারিত আলোচনা করব।

এই পোস্টে শুধু কিভাবে ফ্রিতে ব্লগার ব্লগ তৈরি করবেন সেই বিষয় নিয়ে আলোচনা করবো।

এড্রেস সেট করার পরবর্তীতে স্টেপ ব্লগের “Display name” বসিয়ে দিন। এখানে দর্শকগণ যখন ব্লগে ভিসিট করবে তখন ওই নামটি তারা দেখতে পাবে।

ডিসপ্লে নাম সেট করার পর finish এরমধ্যে ক্লিক করুন। এরপর নিজের ব্লগের একাউন্টের ড্যাশবোর্ডে পৌঁছে যাবেন।

আরও পড়ুন-

স্টেপ 3- blog steup করেনিন।

ফ্রেন্ডস,ব্লগার ড্যাশবোর্ড থেকে ব্লগের সমস্ত যাবতীয় কর্ম যথা – পোস্ট পাবলিশ করা, এডিটিং করা,স্ট্যাস্টিস দেখা,ব্লগ সাজানো,আর্নিং দেখা,নানান কাজকর্ম এই ড্যাশবোর্ড থেকে অ্যাক্সেস করতে পারবেন।

এছাড়া আপনি যদি একের অধিক ব্লগ ওপেন করতে চান তাহলে এই ড্যাশবোর্ড থেকেই সেগুলো কন্ট্রোল করতে হবে।

এখানে আমার ব্লগটি টেকনোলজি সম্পর্কিত blog,কিন্তু আমি চাইলে এই ব্লগার একাউন্ট এরমধ্যে আরও কয়েকটি ব্লগ open করতে পারি।

উদাহরণস্বরূপ- হেলথ blog, এডুকেশন blog ইত্যাদি ইত্যাদি।

ব্লগের ডেশবোর্ডে টার্মস এন্ড কন্ডিশন গুলি একবার ভালো করে পড়েনিন। ব্লগে কোনোরকম পোষ্ট পাবলিশ করার আগে ব্লগ পুরোপুরি সাজিয়েও সেটিং গুলি ঠিক করেনিতে হবে নিতে হবে।

তাহলে চলুন প্রথমে ব্লগের ঠিক থাকে সেটিং গুলো একবার দেখেনি।

স্টেপ 4- blog সেটিং করেনিন।

সেটিং option এ যাওয়ার জন্য ড্যাশবোর্ড এর বাঁদিকে মেনু দেখছেন সেখানে নিচে স্ক্রল করুন। এবার “settings” অপসন ওপেন করুন।

একটি সাকসেসফুল ব্লগার ব্লগ বানাতে প্রথমেই এর সেটিং গুলি ঠিক করেনিতে হবে।

উপরের ছবিতে দেখানো সেটিংস অপশন গুলি পূরণ করুন। নিচে পয়েন্ট বাই পয়েন্ট কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ সেটিংস সম্পর্কে জেনেনেব।

A) Title – ব্লগের টাইটেল হচ্ছে আপনার ব্লগ কি সম্পর্কিত সেটি কয়েকটি শব্দ বা সংক্ষিপ্ত এক লাইন বর্ণনা করুন। দেখুন আমি ছবিতে যেভাবে টাইটেল দিয়েছি আপনারা সেভাবে টাইটেল দেওয়ার চেষ্টা করুন।

B) Description – টাইটেলের পরে দ্বিতীয় অপশন ডিসক্রিপশন এরমধ্যে ব্লগ সম্পর্কে কয়েক লাইন লিখে সংক্ষিপ্ত বর্ণনা দিতে হয়। যেভাবে উপরে আমি নিজের ব্লগ সম্পর্কে দু এক কথা লিখেছি আপনারা নিজের ব্লগ সম্পর্কিত দু-একটি কথায় বর্ণনা করুন।

এর পরবর্তীতে স্টেপ গুলি ভবিষ্যতে ব্লগ সেটআপ করার পর সেটিং গুলিকে নিজের প্রয়োজন অনুযায়ী পাল্টে নেবেন।

C) Time zone – Formatting অপসনে নিজ দেশের “Time zone” সিলেক্ট করেনিতে হবে। যদি ইন্ডিয়ান হন তাহলে কলকাতার টাইমজোন সিলেক্ট করুন ও বাংলাদেশ থেকে অ্যাকেস করতে চাইলে বাংলাদেশের টাইমজোন সিলেক্ট করুন।

ফ্রেন্ডস আপনার ব্লগের বেসিক সেটিইং হয়েগেছে। পরবর্তী ক্ষেত্রে যখন আরো একটু এক্সপেন্সেস হয়েযাবেন তখন এই ব্লগারের সেটিং গুলিকে বিস্তারিত বুঝে নেওয়ার পর সেই অনুসারে এডিট করেনিবেন।

ফ্রেন্ডস সেটিং গুলো ঠিকঠাক করার পর মোটামুটি Blogger blog ওপেন হয়ে যাবে।এবার আপনি চাইলে এই blog থেকে অনায়াসে পোস্ট লিখে পাবলিশ করতে পারেন।

Next ব্লগের জন্য একটি থিম বেঁছে নিন।

স্টেপ 5- ব্লগের জন্য Theme সিলেক্ট করুন।

ব্লগ সুন্দরভাবে সাজাতে ও দর্শকদের কাছে আকর্ষিত করার জন্য একটি ভালো Theme সিলেক্ট করে নিতে হবে।

ব্লগারের মধ্যে বিভিন্ন রকম ক্যাটাগরিতে নানান ব্লগের জন্য আলাদা Theme পাবেন।আপনারা সেখান থেকে একটি থিম সেট করে নিন।

সেটিংস এর উপরে অপশনে থিম এর সেকশন পাবেন,সেখানে ক্লিক করে একটি থিম বেঁছেনিন।

এবার এরমধ্যে দেওয়া থিম গুলি যদি পছন্দ না হয়,তাহলে উপরে কাস্টমাইজ অপশনে ক্লিক করে অফলাইন থেকে থিম ডাউনলোড করে নিতে পারবেন।

গুগলে সার্চ করলে ব্লগারের জন্য আনলিমিটেড সুন্দর সুন্দর theme ফ্রীতে পেয়েযাবেন। theme সেট করার পর “New Post” থেকে কিভাবে আর্টিকেল লিখবেন সেটি দেখে নেবো।

স্টেপ 6- নতুন পোষ্ট ও পেজ কিভাবে পাবলিশ করবেন?

blogger dashboard থেকে নতুন পোস্ট পাবলিক করার জন্য,বাঁদিকে উপরের “New Post” লেখা আছে ওখানে ক্লিক করুন।

ফ্রেন্ডস,নিউ পোষ্টের মধ্যে আপনারা নতুন যে “article” গুলি লিখবেন সেগুলি এই অপশনে গিয়ে লিখে পাবলিশ করতে হয়।

new post সেকশন এরমধ্যে “Microsoft Word” এর মত আর্টিকেল লিখতে যে যে টুল গুলি প্রয়োজন পড়ে সেগুলি সব এখানে মজুদ রয়েছে।

এছাড়া আর্টিকেল লিখতে টেক্সট,ইমেজ,অডিও,special characters যা যা দরকার পরে সব এখানে দেওয়া আছে।

আর্টিকেল লেখা শেষ হলে “Publish” বাটন আছে ওখানে ক্লিক করুন,আপনার আর্টিকেল অনলাইনের মধ্যে পাবলিশ হয়ে যাবে।

ফ্রেন্ডস,নিজের ব্লগ এর মধ্যে বিভিন্ন “page” ও “categories” অ্যাড করতে ড্যাশবোর্ড থেকে “pages” সেকশন এরমধ্যে পেজ গুলি পাবলিশ করতে পারবেন।

স্টেপ 7- নিজের ব্লগ ভিসিট করুন।

এবার আপনারা নিজের ব্লগ বা আর্টিকেল গুলি অনলাইনে দেখতে নিজের blog ভিসিট করুন।

নিজের ব্লগ ভিসিট করতে ”blogger dashboard” এরমধ্যে নিচে “view blog” এর মধ্যে ক্লিক করুন।

এছাড়া আপনি যদি direct ব্লগের এড্রেস লিখে ব্লগ ভিসিট করতে চান তাহলে ব্লগ ওপেন করায় সময় যে এড্রেস দিয়েছিলেন সেটি গুগলে টাইপ করে সার্চ করলে ব্লগ ওপেন হয়েযাবে।

যেমন আমার ব্লগের এড্রেস ছিল “techjaman.blogspot.com” এটি গুগলে টাইপ করলে আমার ব্লগটি ওপেন হয়েযাবে।

ফ্রেন্ডস ,এবার নিজের ব্লগে আপনার রেগুরাল পোস্ট লিখতে থাকুন। যখন অনেক কয়েকটি পোস্ট পাবলিশ করা হয়েযাবে এবং ব্লগ একটু পরিচিত পাবে তখন গুগল এডসেন্স ও অনান্য মাধ্যম দ্বারা ব্লগ থেকে আয় করতে পারবেন।

ফ্রেন্ডস,আপনার যদি ব্লগ থেকে ইনকাম করার সম্পর্কে আরও বিস্তারিত জানতে চান,তাহলে সেই সম্পর্কে আর্টিকেল লেখা আছে তার লিংক দেওয়া হলো –কিভাবে ব্লগ থেকে টাকা আয় করবেন।

আরো পড়ুন –

আমাদের শেষ কথা

ফ্রেন্ডস, একটি প্রফেশনাল ব্লগ বানানোর পর ব্লগে বিভিন্নরকম কাজ করাআছে। কেননা ব্লগকে দর্শকদের কাছে আকৃষ্ট করার জন্য এখানে এর সেটিং ও layout গুলি সাজাতে হবে।

আমরা পরবর্তী পোস্টে কিভাবে ব্লগের মধ্যে আর্টিকেল লিখবেন,ব্লগ এর সেটিং গুলির সম্পর্কে আরও বিস্তারিত জানবো।

তবে,এখন আপনারা উপরে দেখানো প্রসেস অনুযায়ী একটি ফ্রী ব্লগ বানিয়ে নিন,এখানে আপনাদের কোনোরকম অসুবিধে হলে আপনার ইমেইল,কমেন্ট করে জানতে ভুলবেন না।

যাইহোক,আশাকরি এই পোস্টের মাধ্যমে কিভাবে একটি ফ্রি ব্লগার ব্লগ তৈরী করবেন সেটি বঝতে পেরেছেন। ধন্যবাদ

 

Share via
Copy link