কিভাবে ইউটিউব চ্যানেল সেটিং করবেন?

ইউটিউব চ্যানেল সেটিং:- ফ্রেন্ডস,আপনাদের অনেকেই ইউটিউবে নিউ চ্যানেল তৈরী করেছেন,কিন্তু সেই চ্যানেলের মধ্যে কি কি সেটিংস পরিবর্তন করতে হয় সেটা আপনার জানা নেই।তাই আজ এই আর্টিকেলের মধ্যে Advanced YouTube channel settings গুলি দেখেনেবো।

ইউটিউব চ্যানেল সেটিং

ফ্রেন্ডস ,বর্তমান এই ইন্টারনেট দুনিয়ায় একটি সাকসেসফুল প্রফেশনাল ইউটিউব চ্যানেল তৈরি করা খুব একটা সহজ কাজ না। তাছাড়া এই বিষয় নিয়ে সেরকম ইউটিউবে ভিডিও বা আর্টিকেল বাংলাতে পাওয়া দুর্লভ।

আজকাল ইউটিউব চ্যানেল তৈরি করে ভিডিও আপলোড করলেই চ্যানেল গ্রও করেনা।এই প্লাটফর্মে নিজের চ্যানেলকে গ্রও করতে হলে যেমন ভালো fresh content এর প্রয়োজন তেমন কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ advanced settings পরিবর্তন বা তার জ্ঞান রাখা ও প্রয়োজন।

কেননা বর্তমানে ইউটিউবে কম্পিটিশন খুব বেশি তাই এ প্লাটফর্মে গ্রও করতে হলে আপনকে সব বিষয়ে নলেজ রাখতে হবে।

তাই আজকে এই আর্টিকেল দ্বারা ইউটিউব এর কিছু সাধারণ settings থেকে হাইলি এডভান্স সেটিং আছে যেগুলি একান্ত পরিবর্তন করা দরকার সেই সম্পর্কে জানবো।

ফলে একটি সাকসেসফুল ইউটিউব চ্যানেল তৈরি করতে আরও একটি ধাপ এগিয়ে যাবেন।

Advanced YouTube channel settings

বন্ধুগণ প্রথমেই আমরা ইউটিউব চ্যানেল ক্রিয়েট করার পর কি কি সেটিং পরিবর্তন করতে হয় সেগুলি দেখেনেব।তারপর কিছু এডভান্স সেটিং আছে যেগুলো চ্যানেল গ্রও করতে প্রয়োজন পড়ে সেগুলি বিস্তারিত জানবো। তাহলে চুলুন শুরু করাযাক-

ফার্স্ট স্টেপ youtube ওপেন করে “YouTube Studio” এর মধ্যে প্রবেশ করুন।তারপর ড্যাশবোর্ড ওপেন হলে বাঁদিকে সেটিংস অপশন লেখা আছে ওখানে ক্লিক করে প্রবেশ করুন।

channel Default settings:-

বন্ধুগণ এবার সেটিংস ক্লিক করলে একটি পপআপ উইন্ডোর মধ্যে সেটিং অপশন টি ওপেন হবে,এখানে চ্যালেনের যাবতীয় বিভিন্ন সেটিংস্ গুলো পরিবর্তন করে নিতে পারবেন।

প্রথম সেকশন General

এখানে Default Unit- currency এরমধ্যে US Dollar থাকবে ওটাই রেখেদিন।

দ্বিতীয় সেকশন Channel 

চ্যানেল সেকশন এরমধ্যে কয়েকটি অপশন পাবেন,তাই আপনার চ্যানেল কি বিষয় বা কোন টপিকের উপর সেই অনুসারে সেটিংস গুলি ঠিককরে নিতে হবে।

Basic Info :-

বেসিক ইনফো এর মধ্যে কয়েকটি বাক্স আছে।প্রথম বক্সে যেখানে Name এর জায়গাই নিজের চ্যানেল এর নাম দিন,তারপর কোন দেশের ভিউয়ার বা দর্শক এই চ্যানেল দেখাতে চান সেটা সিলেক্ট করুন উ:- ইন্ডিয়া।

নেক্সট চ্যানেল ক্যাটাগরি অনুসারে Keywords দিন।(আপনার চ্যানেল কোন বিষয় নিয়ে তার কিছু Keywords দিন,যেমন গানের চ্যানেল হলে – bollywood,hindi songs,bangla songs). এই বাক্স গুলি ফিল করার পর save করেদিন।

Advanced settings

পরের অপসন অ্যাডভান্স সেটিংস এর মধ্যে চলে আসুন।এখানে কিছু সেটিংস পরিবর্তন করতে হবে।এখানে youtube কে জানাতে হবে আপনার চ্যানেল কি বাচ্চাদের জন্য নির্বাচন করতে চান তাহলে YES এর মধ্যে টিক করেদিন।(set this channel as made for kids)

আরযদি বাচ্চা দের চ্যানেল না হয়,সবার দেখার মত সাধারণ চ্যানেল হয় তাহলে No করে দিন।(set this channel as not made for kids.I never upload content that’s made for kids).

এরপর আপনার Google Ads account থাকলে এখানে লিংক করতে পারেন।(বিস্তারিত আরও জানুন-Link YouTube channels and Google Ads accounts)

নেক্সট চ্যানেল ভিডিও এর মধ্যে Auto-generated captions যথা auto-translated subtitles অ্যাড থাকলে এবং তারমধ্যে অনুপযুক্ত শব্দ গুলি বাদ দিতে নিচের বক্সে টিক দিন।

(বিস্তারিত আরও জানুন- Automatic captioning advanced settings)

Next আপনার চ্যানেল দর্শকদেরচ্যানেল সাবস্ক্রাইব সংখ্যা দেখতে চান তাহলে পরের বক্সে টিক দিন।

এরপর আপনার চ্যানেল এর মধ্যে monetization চালু থাকলে আপনি দর্শকের আগ্রহ বিপণনের বিজ্ঞাপনগুলির বন্ধ করতে পারেন।এই অপসন টিক দিলে ads থেকে আর্নিং কমে যেতে পারে।(বিস্তারিত আরও জানুন- Disable interest-based ads)

এরপর নিচে আরও Other settings এর ব্লু লিংক দেওয়া আছে –

Manage Your youtube account – যারা সাহায্যে নিজের youtube একাউন্ট অ্যাডমিন এর বিভিন্ন সেটিংস চেঞ্জ করতে পারবেন।

Remove YouTube content– এখানে আপনি নিজের videos এবং playlists ইউটউব থেকে ডিলিট বা মুছে দিতে পারেন।

Advanced- এখানে নিজের ওয়েবসাইট থাকলে অ্যাড করুন।

এবার Advanced settings অপশনের এরমধ্যে পুনরাই সেটিংস গুলি চেক করেনিয়ে save করেদিন। তারপর পরবর্তি Feature eligibility অপসন এরমধ্যে প্রবেশ করুন।

Feature eligibility

এখানে আপনি দুটি বক্স দেখতে পাবেন প্রথমটি হচ্ছে Default features যেটি অটোমেটিকলি Enabled হয়ে থাকবে, কিন্তু দ্বিতীয় ফিচারস যেটা আপনার ফোন ভেরিফিকেশন করা একান্ত দরকার।

youtube এরমধ্যে কিছু স্পেশাল ফিচার আছে সেগুলির সুবিধে পেতে আপনার একাউন্ট এর phone verification (ফোন ভেরিফাই ) করেনিন।

  • চ্যানেল ভেরিফাই না থাকলে ১৫ মিনিটের বেশি লম্বা ভিডিও আপলোড করতে পারবেন না।
  • ভিডিও এর মধ্যে Custom thumbnails লাগাতে একাউন্ট ভেরিফাই বাঞ্চনীয়।
  • এছাড়া Live streaming করতে পারবেন না
  • Appealing Content ID claims.

এবার কিভাবে নিজের ইউটউব চ্যানেল ভেরিফাই করবেন সেটি আমি অন্য একটি আর্টিকেলে বিস্তারিত বুঝিয়েছি,তার লিংক দিলাম।(ইউটউব চ্যানেল ভেরিফাই)

চ্যানেল ভেরিফাই হয়েগেলে save করেদিন তাহলে channel সেকশন সম্পূর্ণ হবে।এবার আমরা পরবর্তী সেকশন Upload defaults সম্পর্কে জানবো।

তৃতীয় সেকশন-Upload defaults

আপলোড ডিফল্ট সেকশন এরমধ্যে যে অপসন গুলি দেখতে পান সেগুলি চ্যানেলর মধ্যে ভিডিও উপলোড করার পর ডিফল্ট সিলেক্ট হয়ে থাকবে।

এই সেকশনে প্রথম অপসন Title(টাইটেল),এখানে ভিডিও এর জন্য আগে থেকে টাইটেল অ্যাড করা রাখা যাই।(মানে চ্যানেলের মধ্যে যে ভিডিও গুলি আপলোড করবেন সেখানে এই টাইটেল অ্যাড হয়েযাবে)

Next-Description

এই অপশনের মধ্যে প্রত্যেক ভিডিও এরমধ্যে যে বিবরণ অ্যাড করবেন সেগুলি আগে থেকে ডিফল্ট লিখে রাখতে পারেন।

যারফলে যখনই আপনি চ্যানেলের মধ্যে কোন ভিডিও আপলোড করবেন সেগুলি বারবার সেগুলি লিখতে হবেনা। যেমন -subscribe to our channel,কন্টাক্ট ইনফো ইত্যাদি।

Next-Visibility

এখানে আপনি ৩ টি অপসন পাবেন,যে ভিডিও গুলি ইউটুবে আপলোড করবেন সেটি চ্যানেলে ডাইরেক্ট দর্শককে দেখাতে চান না hide করে এডিট ও রিভিউ করে শো করাতে চান তার অপসন পাবেন।

Next – Tag

এই অপসনে একটি বাক্স পাবেন,আপনার চ্যানেল কোন বিষয় নিয়ে যেমন – tech,নিউস,গেমিং,হেলথ,ফ্যাশন,ইত্যাদি যে বিষয়ের উপর তার কিছু Keywords দিন।

যেমন গানের চ্যানেল হলে – bollywood,songs,bangla songs,tech চ্যানেল হলে news,technology,technews ইত্যাদি এই ধরণের কিওয়ার্ড দিয়েদিন।

এরপর আপনি পরের কলামে অ্যাডভান্স সেটিং অপসন পাবেন।সেখানে কিছু বিষয় আছে সেগুলি আপনার জেনেরাখা দরকার।

Advance settings

এই অপশনে আপনি কিছু Advance সেটিং আছে যে গুলি ঠিক ভাবে দিলে youtube এ চ্যানেল ও ভিডিও এর ডেমোগ্রাফিক ভালো বুঝতে পারবে।এবং সেই ভিডিও সঠিক দর্শকদের সাজেস্ট করবে।

ফলে আপনার ভিডিওতে ভিড় ও চ্যানেলের গ্রও বাড়বে।

ফার্স্ট লাইসেন্স বক্সে আপনার কনটেন্ট অরজিনাল হলে standard Youtube license চুষ করুন।এর ফলে আপনার কন্টেন্ট কেউ youtube এরমধ্যে আপলোড করলে আপনি তার কপিরাইট clam করতে পারবেন।

আর এডিট বা মোডিফাই করা কনটেন্ট হলে Creative Commons – Attribution সিলেক্ট করুন।

নেক্সট আপনার চ্যানেল যে ক্যাটাগরি সেকশনে পরে সেটি সিলেক্ট করুন। ওখানে অনেক অপসন দেওয়া আছে।

এর পর আপনি ভিডিও এরমধ্যে video language কি সেটা সিলেক্ট করতে পারেন।এছাড় subtitles অ্যাড করা ও ভিডিও আমেরিকার আন্ডার হলে সেখানে রুলস অনুযায়ী Caption certification সিলেক্ট করুন।

তারপর নিচে আপনার ভিডিও এর Title and description কি language সেগুলি সিলেক্ট করুন।শেষ অপসন ভিডিও এর মধ্যে কমেন্ট এলাও on/off ও দর্শকের ratings দেখা বন্ধ করতে পারবেন।

চতুর্থ সেকশন-Permissions

এই সেকশনে আপনার ব্র্যান্ড একাউন্ট বা চ্যানেল এর ওনারশিপ দেখতে পাবেন ও সেটি চেঞ্জ করার অপসন পাবেন।এছাড়া আপনার চ্যানেলকে একসেস করার জন্য যাদের Permissions দেওয়া আছে সেগুলি মুছে দিতে পারবেন।

পঞ্চম সেকশন – Community

এখানে আপনি কয়েকটি অপসন পাবেন পাবেন যে গুলি আপনার চ্যানেল গ্রও করার পর কাজে আসবে।

Automated Filters

Moderators- আপনার চ্যানেল এর কমেক্ট সেকশনকে ম্যানেজ করতে Moderator এর প্রয়োজন পরে। যেমন-ইউসার দ্বারা কমেক্ট করা প্রশ্নের উত্তর বা রিপ্লাই দেওয়া।

Approved users- এখানে আপনি যে চ্যানেল বা ইউসার দের এর লিংক দিবেন তাদের লেখা কমেক্ট automatically published হয়ে যাবে।

Hidden users- এখানে আপনি যে চ্যানেল বা ইউসার দের এর লিংক দিবেন তাদের লেখা কমেক্ট,চ্যাট ,ম্যাসেজ automatically ব্লক হয়ে যাবে।

Blocked words- এই বক্সে যে ওয়ার্ড গুলি আপনি লিখবেন সেগুলি Comments সেকশন review এ চলে যাবে।

Block links- এখানে টিক দিলে যে কমেন্ট গুলিতে URLs থাকবে সেগুলি রিভিউ এ চলে যাবে।

Defaults

এই সেকশনে আপনি দুটি অপশন পাবেন।

১) নিজের ইউটউব চ্যানেল এরমধ্যে কমেন্ট এলাও করা ও ২) বক্সে টিক দিয়ে লাইভ চাটে অনুপযুক্ত ম্যাসেজ কে রিভিউ এর জন্য হোল্ড এ রাখা।

শেষ সেকশন-Agreements

সেটিংস এর মধ্যে আপনি শেষ সেকশন পাবেন ইউটউব Agreements .এখানে আপনি YouTube Partner Program Terms গুলি ভালো করে পড়েনিন। এই ছিলো ইউটিউব চ্যানেল সেটিং এর শেষ ধাপ।

বন্ধুগণ,আশাকরি আপনার ইউটউব ষ্টুডিও এর সেটিং সম্পর্কে ধারণা পেলেন।আমি উপরে প্রত্যেকটি সেকশন হালকা করে বুঝানোর চেষ্টা করছি।তবে এছাড়াও চ্যানেল কে গ্রো ও ভালো আর্নিং পেতে তাকে নিজের আওত্তে আনতে হবে।

Channel content,channel analytics,Channel customization,Channel monetization,youtube SEO এই সব বিভিন্ন বিষয়ের উপর নজর দিন,তাহলে খুব তাড়াতাড়ি আপনার চ্যানেল সফলতা পাবে।

যাইহোক ,ইউটিউব চ্যানেল সেটিং সম্পর্কে কোনো প্রশ্ন থাকলে কমেন্ট করতে ভুলবেন না।

Share via
Copy link